মঙ্গলবার ৩১ জানুয়ারি ২০২৩
১৮ মাঘ ১৪২৯ বঙ্গাব্দ
 
কুয়াকাটায় জেগে ওঠা চরবিজয় হতে পারে পর্যটনের নতুন এক সম্ভাবনাময়
কলাপাড়া(পটুয়াখালী) প্রতিনিধি
প্রকাশ: শনিবার, ২১ জানুয়ারি, ২০২৩, ৬:৩২ পিএম

কুয়াকাটা সমুদ্র সৈকতের বুকে এক টুকরো জেগে ওঠে সেন্টমার্টিন মত‘চরবিজয়’দক্ষিণ উপকূলে গত কয়েক দশকে জেগে উঠেছে বেশ কিছু চর। এসব চরের অপরূপ সৌন্দর্যও । এরমধ্যে বঙ্গোপসাগরের বুকে জেগে ওঠা বিশাল সম্ভাবনাময় ‘চরবিজয়’। প্রায় ১০ হাজার একর আয়তন নিয়ে জেগে ওঠা এ চরটি পর্যটন কেন্দ্র কুয়াকাটা থেকে প্রায় ২৫ কিলোমিটার পূর্ব-দক্ষিণে অবস্থিত। যা ইতোমধ্যে দৃষ্টি কেড়েছে পর্যটকদের।

বিজয়ের মাস ডিসেম্বরে চরটির সন্ধান পাওয়ায় একদল পর্যটক ও স্থানীয় পর্যটন ব্যবসায়ীরা তাই এর নাম রাখা হয় ‘চরবিজয়’। লক্ষ লক্ষ লাল কাঁকড়ার অবাধ ছুটোছুটি আর হাজার হাজার অতিথি পাখির কলকাকলি। দিগন্ত জোড়া আকাশ আর সমুদ্রের নীল জল রাশি আছড়ে পড়ছে কিনারায়। এছাড়া জেলেদের মাছ শিকার নিকট থেকে দেখা। সাদা গাংচিলের দল এদিক-ওদিক উড়ে যাচ্ছে। মানুষহীন এ চরে মানুষের উপস্থিত টের পেলেই লাল কাঁকড়ার দল ছুটে পালিয়ে যায় এক প্রান্ত থেকে আরেক প্রান্তে। গর্তে লুকিয়ে থেকেও উঁকি দিয়ে পর্যটকদের গতিবিধি লক্ষ্য করে কাঁকড়াগুলো, যা বিমোহিত করে পর্যটকদের।

                              


‘চরবিজয়’ঢাকা থেকে ভ্রমণে আসা মারুফ নামের পর্যটক জানান,চরটিতে  পাখি ও লাল কাকঁড়ার অবাধ ছুটোছুটি যে কোনো মানুষকে মুগ্ধ করবে। কুয়াকাটায় এসে যদি এ চরে না যাওয়া হয়, তবে অপূর্ণতা থেকেই যাবে। স্থানীয় পর্যটন ব্যবসায় নুর হোসেন আকাশ বলেন,কুয়াকাটার সব চেয়ে জন প্রিয় ভ্রমণ স্পষ্ট চর বিজয় আমাদের এখান থেকে দৈনিক  দুই থেকে তিনটি স্পীডবোট ও লাইভ বোর্ড চরবিজয় দের উদ্দেশ্যে পর্যটক নিয়ে ছেড়ে যায়।

কুয়াকাটা ট্যুরিস্ট  বোর্ড মালিক সমিতির সভাপতি জনি আলমগীর  বলেন,২০১৭ সালের ডিসেম্বর মাসে আমার সাথে কয়েকজন পর্যটক,শিক্ষক ও স্থানীয় পর্যটন ব্যবসায়সহ মোট ১২ জন মিলে অজানার উদ্দেশ্যে রওনা দিয়ে খুঁজতে খুঁজতে সন্ধান পাই এ চরের। তখনই নামকরণ করা হয় এ চরের। স্থানীয়, পর্যটন ব্যবসায়ী ও বিশেষজ্ঞদের সাথে আলাপ করলে তারাও সম্মতি জানায়। এরপর থেকেই কুয়াকাটায় আগত পর্যটক, স্থানীয় ব্যবসায়ীসহ বিভিন্ন মানুষ ‘চরবিজয়’-এ যান। সরকার যদি এ দ্বীপকে ঘিরে পর্যটকদের জন্য উদ্যোগ নেয়,এটি কুয়াকাটার অন্যতম পর্যটন কেন্দ্র হিসেবে বিশ্বে পরিচিতি পাবে।

                             

কলাপাড়া উপজেলা নির্বাহী অফিসার শংকর চন্দ্র বৈদ্য বলেন, ‘চর বিজয়’ বর্তমানে পর্যটন কেন্দ্রের আওতায় রয়েছে। তবে ওখানে যাওয়ার জন্য স্থানীয় পর্যটন ব্যবসায়ীরা ইতোমধ্যে স্পীডবোট চালু রয়েছে। এছাড়াও ফাইবারের লাইভ বোর্ড মাধ্যমে পর্যটকরা এ চরটি দেখতে যাচ্ছেন। এটাকে আরো উন্নত করার জন্য আমরা কাজ করছি যাতে পর্যটকদের আকর্ষণ বাড়ে।

ডিএস/এস আর




ইউটিউব চ্যানেল সাবস্ক্রাইব করুন





সর্বশেষ সংবাদ  
আরো খবর ⇒
সর্বাধিক পঠিত  
ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : মিরাজুল ইসলাম
৭৯/২, নাজিরাবাজার লেন, বংশাল, ঢাকা-১০০০, বাংলাদেশ।
ফোন: ৮৮-০২-৪৭১২১১১১, ০১৯৭৪-৫৬৪৯৮৭, ই-মেইল : dhakastate.news@gmail.com
কপিরাইট © ঢাকা স্টেট সর্বসত্ত্ব সংরক্ষিত | Developed By: i2soft